এক বড় লোক ভিক্ষুকের জীবন কাহিনী?

এক বড় লোক ভিক্ষুকের সাকসেস জীবন কাহিনী

এক ছেলে ভিক্ষুক সেজে এক বড় লোকের কাছে যাই । সে এসে বলে আমাকে কিছু ভিক্ষা দেন আমার সারা শরির ব্যান্ডেস করা । সে ধনী লোকটা থাকে বলে তুমি মিথ্যা কথা  বলছো তোমার কিছু হয়নি । সে ভিক্ষুকটা মনে মনে এ কেমনে জানে আমি মিথ্যা কথা বলছি ।

সে আবার কান্না কন্ঠে বলে না স্যার সত্যি আমি অসুস্থ । এ বলতেই ধনী লোকটা বলে আবার মিথ্যা কথা বললে । ভিক্ষুক তো ভয় পেয়ে গেলো আর বললো এ কেমনে জানলো এবার ভিক্ষুক হাত জোর করে বলে স্যার আপনি ঠিকি বলেছেন আমি অসুস্থ না আর আমাকে মাফ করে দেন । স্যার একটা কথা আপনি কেমনে জানলেন আমি মিথ্যা কথা বলছি ।

তখন ধনী লোকটা বললো আমি ও তোমার মতো সুস্থ হয়ে অসুস্থ হওয়ার ভান করতাম । আমি ও তোমার মতো বড় ভিক্ষা পাওয়ার আশা করতাম । আর এখন আমি বাংলাদেশের একজন ধনী লোক। আমি যে হোটেলে দাড়িয়ে আছি এটাও আমার । অবশ্য এর পেছনে অনেক বড় কাহিনী আছে ।

তখন ভিক্ষুকটা জিঙ্গেস করলো কি কাহিনী স্যার । তখন ধনী লোকটা বললো চলো ফাকা জায়গায় গিয়ে কথা বলি । এ বলে তারা ফাকা জায়গায় আসলো । এসেই ভিক্ষুকটি বললো এবার বলেন স্যার । তারপর ধনী লোকটা বলতে শুরু করলো ।

একদিন আমি তোমার মতো বড় ভিক্ষা নেওয়ার জন্য অভিনয় করি । এক বড় লোকর কাছে গিয়ে ভিক্ষা চাইলাম । তিনি আমার মুখের তাকায় আর পুরো শরির দিকে তাকিয়ে বললো তুমি কেন ভিক্ষা করছো তোমার হাত পা তো সব ঠিকি আছে ।

আমি বললাম স্যার কাজ কই পাবো । নিজের খাওয়ার ঠিক মতো পাই না । আর কে আমাকে কাজ দিবে স্যার । এ কথা শুনে বললো তাহলে ব্যবস্যা করবে । আমি হাসলাম হেসে বললাম স্যার আপনি কি বলেন ।  নিজের খাওয়ার জন্য মানুষের কাছে ভিক্ষা করি আর ব্যবসা করবো কি করে । এ কথা শুনে তিনি কিছু খন ভেবে বললেন আচ্ছা আমি তোমাকে কিছু টাকা দিচ্ছি তা দিয়ে ব্যবসা শুরু করো ।

এ বলে ‍তিনি আমাকে কিছু টাকা ‍দিলেন । সে টাকা ‍দিয়ে আমি একটা চায়ের দোকান ‍দিলাম । প্রতিদিন ভোরে আসতাম আর সারা দিন চা বিক্রি করতাম । এভাবে অনেক কস্ট করতে লাগলাম । এভাবে চলতে লাগলো আর এলাকাতে আমার চায়ের সুনাম সষ্টি হয়ে গেলো । তখন এলাকার মানুষ আমার চা খেতে আসতো এতে আমি একা দোকান সামলাতে পারছিলাম না ।

তখন একটা কাজের লোক নিলাম । তখন আমার দোকানে মানুষের চাপ বাড়তে শুরু করে । এভাবে  আসতে আসতে আমার দোকান বাড়তে থাকে । এভাবে 10 বছরের মধ্যে আমি বাংলাদেশের একজন ধনী লোক হয়ে উঠলাম । আজ আমার বাংলাদেশের সব জায়গায় আমার হোটেল আছে । এ কথা শেষ হতেই বললো স্যার আপনার কথা শুনে আমারো খুব ইচ্ছে হচ্ছে ‍বিজনেস করতে । আজ থেকে আর ভিক্ষা করবো না ।

এ বলতেই সে ধনী লোকটি তাকে কিছু টাকা দিলেন । এবং সেখান থেকে চলে আসেন । এর কয়েক বছর পর ধনী লোকটি বাসায় যাওয়ার সময় মনে বাড়িতে কিছু চাল ডাউল লাগবে । এ বলে সে এক ‍দোকানে ভেতর গিয়ে বললো আমার কিছু বাজার লাগবে । দোকান দার মুখের তাকিয়ে  বললেন আরে স্যার আপনি কেমন আছেন । এ বলাতে ধনী লোকটি অবাক হয়ে উত্তর দিলেন । আমি ভালো আছি তুমি আমাকে চিনো ।

এ বলতেই দোকান দার বলে স্যার আপনাকে চিনবো না কেন । আপনার জন্য আজ আমি এখানে  এসেছি । আপনার মনে নেই আমি সারা শরীরে ব্যান্ডিস করে ভিক্ষা চাইতে গেছিলাম । এ বলতেই ধনী লোকটা বললো ও তুমি সেই তা আজ এখানে কিভাবে ।

তখন দোকান দার বললো বসেন স্যার বলছি । তারপর বলতে লাগলো  যে আপনার দেওয়া টাকা নেওয়ার পর কি করবো সেটা ভেবে পাচ্ছিলাম না । পরে একটা ছোট মদি খানার দোকান দিলাম । প্রথম প্রথম অনেক কস্ট হয়েছিলো ।

পরে যখন আনেক কস্ট করতে শুরু করলাম । তখন ধীরে ধীরে আনেক কাস্টমার আসতে লাগলো আমার দোকানে । এভাবে চলতে থাকলো ৫ বছরে আমি অনেক টাকা ইনকাম করলাম । পরে আমি দোকানে একটা লোক নিলাম নিয়ে দুজনে দোকান চালাতে লাগলাম । এভাবে আরো  বছর চলে গেলো । আমি আমার সব লাভের টাকা দিয়ে দোকানে অনেক মাল তুললাম আর বড় করলাম ।

বড় করার সাথে সাথে আরো লোক নিয়োগ দিলাম । এভাবে চলতে চলেতে আমি শহরের একজন বড় ব্যবসাহী হয়ে উঠলাম । এ সব আপনার জন্য আপনি যদি সে দিন আমাকে সাহায্য না করতেন তাহলে আজ আমি হয়তো ভিক্ষা করতাম । আর মানুষের কাছে অপমানিত হয়ে সমাজে বেচে থাকতাম । আজ আমি সহৎ আর নিষ্টার সাথে ব্যবসা করছি স্যার ।

একথা শুনে ধনী লোকটি কেদে দিলেন আর বলেন আজ আমার সেই লোকের কথা মনে পড়ছে যিনি আমাকে পথ দেখিয়েছেন । তিনি যদি পথ  না দেখাতেন তাহলেও আমিও আজ রাস্তায় ঘুরে বেরাতাম । আজ অনেক খুশি যে আপনি কিছু করে দেখালেন ।

তখন দোকান দার বললেন স্যার আপনি ঠিকি বলেছেন । তখন  দোকান দার বললো আজ আমি আপনার জন্য জীবনে সাকসেস হয়েছি তাই আপনার যা লাগবে ফ্রী নিয়ে যান । ধনী লোকটা ফ্রী ‍নিতে চাইলো না । তাও দোকান দারের জেদের কাছে হার মেনে সে ফ্রী জিনিস নিয়ে চলে গেলো  ।

তখেন দু হাত তুলে আল্লাহর কাছে শুকরিয়া আদয় করে বলে হে আল্লাহ আমিও যেন গরিব দুংখী মানুষদের সাহায্য করতে পারি । আমাকে যেন সহৎ ও নিষ্টার সাথে কাজ করার তৈফিক দান করো । এবং আমাকে যে সাহায্য করেছে তাকে তুমি হেদায়ত দান করো । আমিন ।

দোকান দার মনে মনে বললো জীবনে কষ্ট না করলে আমি কিছু হতে পারতাম না আর জীবনে সাকসেস হতে পারতাম না । মানুষের জীবনে কষ্ট আসবেই সেটাকে জয় করে এগিয়ে যাওয়াাকে জীবনের সাকসেস বলে ।

Comments

You must be logged in to post a comment.